শব্দালঙ্কার নির্ণয়


১) শব্দালঙ্কার প্রকৃতপক্ষে ধ্বনির অলঙ্কার। ধ্বনি আবার কোথাও পদধ্বনি, কোথাও বাক‍্যধ্বনি, কোথাও বর্ণধ্বনি।
২) বর্ণধ্বনির অলঙ্কার হয় অনুপ্রাস অলঙ্কারে।
৩) যমক, বক্রোক্তি, শ্লেষ ও পুনরুক্ত বদাভাস হল পদধ্বনির অলঙ্কার।
৪) সুধীর দাশগুপ্ত প্রধানত দুটি শব্দালঙ্কারকে স্বীকার করেছেন – ধ্বন‍্যুক্তি ও অনুপ্রাস।
৫) অনুকারার্থ শব্দের প্রাধান‍্যে ধ্বন‍্যুক্তি অলঙ্কার হয়।

৬) শব্দালঙ্কারের মধ‍্যে অনুপ্রাস শ্রেষ্ঠ অলঙ্কার
৭) সাধারণত ব‍্যঞ্জনবর্ণে অনুপ্রাস দেখা যায়। তবে, আধুনিককালে স্বরবর্ণেও অনুপ্রাস দেখা যাচ্ছে।
৮) শুধুমাত্র স্বরধ্বনির সাদৃশ‍্যজনিত অনুপ্রাস স্বীকার করেননি – শ‍্যামাপদ চক্রবর্তী।
৯) “অনুপ্রাসঃ শব্দসাম‍্যং বৈষম‍্যেহপি স্বরস‍্য যৎ” – এর প্রবক্তা আচার্য বিশ্বনাথ চক্রবর্তী।
১০) অনেকেই, অনুপ্রাস বলতে বৃত্ত‍্যনুপ্রাসকে বোঝায়। অন‍্য সব অনুপ্রাস বৃত্ত‍্যনুপ্রাসের অন্তর্গত।
১১) অষ্টাদশ শতাব্দীর আলঙ্কারিক উদ্ভট ‘বৃত্তি’ কথাটিকে অনুপ্রাসের আলোচনায় প্রথম প্রয়োগ করেন।
১২) বৃত্তি অর্থ রীতি বা গুণ অর্থাৎ বলার ভঙ্গি।
১৩) উদ্ভট তিনপ্রকার বৃত্তির কথা বলেছেন – পুরুষা, উপনাগরিকা ও গ্রাম‍্যা।
১৪) উদ্ভট কথিত তিনপ্রকার বৃত্তির মধ‍্যে শ্রেষ্ঠ হল – উপনাগরিকা।
১৫) বৃত্ত‍্যনুপ্রাসের ক্ষেত্রে ব‍্যঞ্জন ধ্বনিগুচ্ছ যুক্ত বা বিযুক্তভাবে দুই বা ততোধিকবার ধ্বনিত হয়।
১৬) বৃত্ত‍্যনুপ্রাসে ব‍্যঞ্জনধ্বনিগুচ্ছ ধ্বনিত হয় স্বরূপ অনুসারে অথবা সাদৃশ‍্য অনুযায়ী এবং ক্রমানুসারে
১৭) ছেকানুপ্রাসের ক্ষেত্রে ব‍্যঞ্জনবর্ণ দু’বার ধ্বনিত হবে।
১৮) ছেকানুপ্রাসের ‘ছেক‘ কথার অর্থ হল – বিদগ্ধ
১৯) লাটানুপ্রাস অলঙ্কার নিয়ে প্রথম আলোচনা করেন – ভামহ
২০) শ‍্যামাপদ চক্রবর্তী লাটানুপ্রাস অলঙ্কার স্বীকার করেননি।
২১) লাটানুপ্রাসে শব্দ দুবার পরপর অর্থাৎ ক্রমানুসারে ধ্বনিত হয়।
২২) শ্রুত‍্যনুপ্রাস অলঙ্কারের কথা প্রথম বলেছেন – আচার্য দন্ডী। 
২৩) শ্রুত‍্যনুপ্রাস অলঙ্কার শুধুমাত্র শব্দের শেষে থাকবে।
২৪) অন্ত‍্যানুপ্রাস অনুপ্রাস অলঙ্কার হলেও অনুপ্রাসের শাসন এখানে শিথিল।

২৫) স্বরধ্বনি সমেত ব‍্যঞ্জনধ্বনি দুই বা ততোধিকবার স্বরূপানুসারে ব‍্যবহৃত হয় – যমক অলঙ্কারে।
২৬) যমক অলঙ্কার সার্থক এবং নিরর্থক দুভাবে বাক‍্যে ব‍্যবহৃত হয়।
২৭) লালমোহন বিদ‍্যানিধি তাঁর ‘কাব‍্যনির্ণয়’ গ্রন্থে বলেছেন – বাংলায় নিরর্থক যমক হয় না।
২৮) লালমোহন বিদ‍্যানিধির মতে নিরর্থক যমক আসলে ছেকানুপ্রাস।
২৯) ভরত মুনি ১০টি যমকের কথা বলেছেন।
৩০) আচার্য ভামহ ৫টি যমকের কথা বলেছেন।
৩১) আচার্য দন্ডী ১৫টি যমকের কথা বলেছেন।
৩২) আচার্য বামনের মতে যমক দ্বারা অলঙ্কৃত কাব‍্য উপাদেয়।
৩৩) ভট্টিকাব‍্য গ্রন্থের দশম সর্গে সংস্কৃত যমক অলঙ্কারের উল্লেখ পাওয়া যায়।
৩৪) সাধারণত যমক অলঙ্কার ৪প্রকার হয় – আদ‍্যযমক, মধ‍্যযমক, অন্ত‍্যযমক ও সর্বযমক। 

৩৫) শ্লেষ শব্দটি প্রথম ব‍্যবহার করেন – আচার্য বামন
৩৬) পূর্ববর্তী আলঙ্কারিক ভামহ, দন্ডী শ্লেষ বোঝাতে ‘শ্লিষ্ট’ শব্দটি ব‍্যবহার করেছেন।
৩৭) আচার্য ভামহ শ্লেষ অলঙ্কার স্বীকার করেননি।
৩৮) শ্লেষ অলঙ্কারের কথা স্বীকার করেছেন – আচার্য দন্ডী।
৩৯) শ্লেষ অলঙ্কারকে ব‍্যাজোক্তি বলেছেন – আচার্য মন্মট
৪০) আচার্য রুদ্রট তাঁর গ্রন্থে শ্লেষ অলঙ্কার নিয়ে বিস্তারিত ব‍্যাখ‍্যা করেছেন।
৪১) আনন্দবর্ধনের মতে, শ্লেষেও ধ্বনি থাকে।
৪২) উদ্ভট দুপ্রকার শ্লেষের কথা বলেছেন – শব্দশ্লেষ ও অর্থশ্লেষ।
৪৩) সাধারণত শ্লেষ দুই প্রকার – সভঙ্গ শ্লেষ ও অভঙ্গ শ্লেষ।

৪৪) বক্রোক্তি অলঙ্কার নিয়ে প্রথম আলোচনা করেন – আচার্য ভামহ
৪৫) কুন্তক বলেন – বক্রোক্তিই কাব‍্যের প্রাণ।
৪৬) আচার্য দন্ডীর মতে, বক্রোক্তি অলঙ্কার নয়
৪৭) বিশ্বনাথ কবিরাজ বক্রোক্তিকে কাব‍্যের আত্মা স্বীকার করেননি।
৪৮) বক্রোক্তি সাধারণত দুই প্রকার – শ্লেষ বক্রোক্তি ও কাকু বক্রোক্তি।
৪৯) কাকু বক্রোক্তির কথা প্রথম বলেন – আচার্য রুদ্রট।

৫০) পুনরুক্ত বদাভাস অলঙ্কারের কথা প্রথম বলেছেন – উদ্ভট
৫১) আচার্য মন্মট ও বিশ্বনাথের মতে, পুনরুক্ত বদাভাস শব্দালঙ্কার ও অর্থালঙ্কার উভয়েই হতে পারে।

বৃত্ত্যনুপ্রাস – i) এক‌টি ধ্বনি একাধিকবার ব‍্যবহৃত
ii) যুক্ত বা বিযুক্তভাবে
iii) স্বরূপানুসারে বা ক্রমানুসারে
ছেকানুপ্রাস – i) এক‌ই ধ্বনি দুবার ব‍্যবহৃত
ii) যুক্ত বা বিযুক্তভাবে
iii) ক্রমানুসারে
লাটানুপ্রাস – i) একটি শব্দ দুবার পরপর ব‍্যবহৃত
ii) এক‌ই অর্থ
শ্রুত‍্যনুপ্রাস – i) ব‍্যঞ্জনধ্বনির ক্ষেত্রে
ii) শব্দের শেষের ব‍্যঞ্জনধ্বনি
iii) এক‌ই স্থান থেকে উচ্চরিত ব‍্যঞ্জনধ্বনি
অন্ত‍্যানুপ্রাস – i) দুই চরণের শেষের শব্দধ্বনি

যমক – i) এক‌ই শব্দ দুইবার
ii) নির্দিষ্টক্রমে
iii) দুটি ভিন্ন অর্থে
iv) একটি অর্থযুক্ত, অপরগুলি অর্থহীন
শ্লেষ – i) একটি শব্দ একবার
ii) শব্দটি ভেঙে দুটো অর্থ
iii) না ভেঙেও দুটো অর্থ
বক্রোক্তি – বাক‍্যে ব‍্যবহৃত শব্দের ভিন্ন ভিন্ন অর্থ
পুনরুক্ত বদাভাস – i) দুটো ভিন্ন শব্দ
ii) একটি অর্থ